Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
You are here
Home > Sexual pursuit (যৌন সাধনা) > The way to know the virtuous wife (স্ত্রী সতী না অসতী তা জানার উপায়)

The way to know the virtuous wife (স্ত্রী সতী না অসতী তা জানার উপায়)

স্ত্রী সতী না অসতী তা জানার উপায়ঃ

কোন রমনীকে বিবাহ করার পূর্বে তার স্বভাব চরিত্র ও ভাল-মন্দ উত্তমরুপে পরীক্ষা করে এবং জেনে নিতে হবে। কতকগুলো বিষয় থাকে প্রকাশ্য, সেগুলো জানতে কোন বেগ পেতে হয় না। কিন্তু যা গোপন ব্যাপার, বাহির হতে জানার উপায় নেই। যথা কারো চরিত্রে দোষ আছে, কিন্তু গোপনীয়। বাহির হতে কারো চোখেই ধরা পড়ছে না। সকলেই তাকে সতী-সাধ্বী জানে। কিন্তু গোপনে সকলের চোখের আড়ালে অসৎ কাজে লিপ্ত থাকে। এরুপ গোপনীয় সংবাদ জানবার সুন্দর এক ব্যবস্থা আছে। সে ব্যবস্থা গ্রহণ করলেই রমনীটি কি সতী না অসতী তাহা জানা যাবে। ব্যবস্থাটি নিচে উল্লেখ করা হলঃ
যেমন কোন পাত্রের সাথে যে পাত্রীর বিবাহের আলাপালোচনা চলছে, সে পাত্রের নামটি এবং পাত্রীর নামটির সংখ্যাগতমান একত্রে যোগ করবে। তারপর উভয়ের বয়স একত্র করে তাদের উভয়ের নামের সংখ্যার সাথে যোগ দিবে। যোগ করে যে সংখ্যা হবে, সে সংখ্যাটি চার সংখ্যার দ্বারা গুণ করবে, তৎপর এর গুণফল হতে তিন সংখ্যাটি বিয়োগ করবে। বিয়োগ করার পর যে সংখ্যা থাকবে, তার সাথে পুনরায় উভয়ের নামের সংখ্যা যোগ করবে।
যোগ করার পর যে সমষ্টি হবে তাকে তিন সংখ্যা দিয়ে ভাগ করবে। ভাগ করে যদি এক অবশিষ্ট থাকে তবে জানবে যে ঐ মহিলাটি সতী। তখন তার সাথে বিবাহের স্থির করে ফেলবে, আর যদি দুই অবশিষ্ট থাকে, তাহলে বুঝবে যে, সে পাত্রী সতী নয়, সে অসতী।
তখন তার সম্পর্কে বিবাহলোচনা স্থগিত করবে। আর যদি মোট সংখ্যাটিকে তিন দ্বারা ভাগ করলে অবশিষ্ট কিছুই না থাকে তাহলে বুঝা যাবে যে এখন পর্যন্ত পাত্রীটি অসতী হয়নি।
তবে তার ভবিষ্যত অনিশ্চিত, এমতাবস্থায় এ পাত্রকে বিবাহ করলে পরে তার সম্পর্কে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।
উল্লেখিত ব্যবস্থাটি একটি একটি উদাহরণের সাহার্যে দেখাইয়া দিচ্ছি। মনে করুন পাত্রের নাম রশিদ এবং পাত্রীর নাম মালেকা। রসিদ-এ তিনটি অক্ষর আছে। যার সংখ্যাগত মান হলঃ
র-৭১+স=৭৩+দ=২১=সর্বমোট ১৯৭ মালেকা তে ম-ল-ক
এতিনটি অক্ষর আছে। যার সংখ্যাগতমান হলঃ
ম=৬৫+ল=৭২+ক=৫৩=সর্বমোট ১৫৮ এখন দুটি নামের সংখ্যা দাঁড়াল ১৯৭+১৫৮=৩৫৫
মনে করুণ পাত্রের বয়স=২৪
ও পাত্রীর বয়স=১৮
=৪২
এরই দুটি সংখ্যা যোগে দাঁড়াল ৩৫৫+৪২=২৯৭।
এখন তা ৪ দ্বারা গুণ করলাম-
যথাঃ৩৯৭*৪=১৫৮৮
তারপর মোট সংখ্যা হতে ৩ বিয়োগ করলাম। যথাঃ ১৫৫৮-৩=১৫৮৫ আবার এ সংখ্যার সাথে উভয়ের বয়সমষ্টি যোগ করলাম। যথাঃ ১৫৮৫+৪২=১৬২৭ এ বার এতে দিয়ে ভাগ করলাম।

৩)১৬২৭(৫৪২

(১৫,১২)
৩(১২,৭)
৩(৬,১) অবশিষ্ট রইল।

Top